প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাচা কাদেরের বিচার চাইলেন এরিক এরশাদ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাচা কাদেরের বিচার চাইলেন এরিক এরশাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতীয় পার্টির বর্তমান চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের শাস্তি দাবি করেছেন তার ভাতিজা, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছেলে এরিক এরশাদ। তিনি অভিযোগ করেছেন, তিনি ও তার মা বিদিশার কোনো ক্ষতি হলে এর জন্য জি এম কাদের দায়ী থাকবেন। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চাচার শাস্তি দাবি করেছেন এরিক।

বৃহস্পতিবার বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে তার বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা সংবাদ ও ষড়যন্ত্রমূলক কর্মকাণ্ডের’ প্রতিবাদে এরিক এরশাদ সংবাদ সম্মেলন করেন।

এরিক এরশাদ বলেন, ‌‘আমার এবং আমার মা বিদিশা এরশাদের যদি কোনো ক্ষতি হয়, তাহলে এজন্য দায়ী থাকবেন চাচা জিএম কাদের। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানাই।’

এরিক বলেন, ‘জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের অর্থপাচারের কোনো প্রমাণ পৃথিবীর কোথাও প্রমাণিত হয়নি। তবুও আমার বাবার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছেন।’

এরশাদের মৃত্যুর পর তার বাবা ও মায়ের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে জানিয়ে এরিক বলেন, ‘বাবার মৃত্যুর পর থেকে সহায়-সম্পত্তির লোভে চাচা জিএম কাদের ষড়যন্ত্র করে আসছেন। এখনো তিনি ষড়যন্ত্র করছেন।’

এরিক বলেন, ‘আমি সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সন্তান। আজ আমার বাবা নেই। এই সুযোগে আমার চাচা জিএম কাদের জন্ম-পরিচয় তুলে আমার ও আমার মা বিদিশা এরশাদের বিরুদ্ধে গত দু’দিন ধরে সংবাদমাধ্যমে নিউজ করাচ্ছেন।’

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার দাবি করে এরিক বলেন, ‘আমার এবং আমার মা বিদিশার যদি কোনো ক্ষতি হয়, এর জন্য দায়ী থাকবেন একমাত্র আমার চাচা জি এম কাদের। আর আমি এই জন্য আমার চাচা জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আবেদন করছি।’

সংবাদ সম্মেলনে এরশাদ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান কাজী মামুনুর রশীদ বলেন, ‘এরশাদ ক্ষমতা ছাড়ার পরও ২৭ বছর জীবিত ছিলেন। তিনি জীবিত থাকা অবস্থায় কেউ তার বিরুদ্ধে টাকা পাচারের অভিযোগ করেননি। তার বিরুদ্ধে যত মামলা হয়েছিল, প্রত্যেকটিতে তিনি নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছিলেন। আজ তাকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে।’

মামুনুর রশীদ বলেন, ‘কিছুদিন আগে আমরা প্রেসক্লাবে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের একটি স্মরণসভা করেছিলাম। সেই সভায় আমরা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলেছিলাম। যখনই আমরা পার্টির চেয়ারম্যানের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলেছি, তখনই কিন্তু এরশাদ, এরিক ও বিদিশাকে কেন্দ্র করে নিউজ করা হয়। জাপার ফেসবুক পেজ থেকে নিউজগুলোর প্রচার চালানো হয়। জাপা চেয়ারম্যানের ফেসবুক থেকেও নিউজগুলোর প্রচার চালানো হয়। জাপা ও সারাদেশের মানুষ বিশ্বাস করেন এসব নিউজ ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের জড়িত।’

‘পাসপোর্ট ও জন্মনিবন্ধনে বিস্ময়কর তথ্য: বিদিশার দুই পুত্রের জন্ম একদিনে, বাবা দুইজন!’ এই শিরোনামে প্রচারিত সংবাদ মিথ্যা বলে দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।